সাংবাদিকতায় আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন: ০১৭১১৫৭৬৬০৩
  • সন্ধ্যা ৭:৫৩ | ১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৮ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

প্রশাসনের সহযোগিতায় ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর সুপার মার্কেট

এইচ.এম. সিরাজ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর সুপার মার্কেট’। জেলার ঐতিহ্যবাহী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। জেলা শহরের প্রাণকেন্দ্র পুরাতন কোর্ট রোডে অবস্থিত বহু বছরের পুরোনো-ঝুঁকিপূর্ণ মার্কেটটিকে অবশেষে প্রশাসনের সহযোগিতাতেই ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে।

একতলা বিশিষ্ট এই ভবনটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয় কয়েক বছর আগেই। যেকোনো মুহূর্তে ভবনটি ধসে বড় ধরণের দুর্ঘটনার অাশঙ্কা ছিলো। ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা কর্তৃপক্ষ মার্কেটের জরাজীর্ণ ভবনটি ভেঙে বহুতল বিশিষ্ট আধুনিক শপিং মল করার উদ্যোগ নিলেও ব্যবসায়ীদের বাধায় তা হয়ে ওঠেনি। শেষতক প্রশাসনিক সহযোগিতায় বহু পুরনো অার ঝুঁকিপূর্ণ মার্কেটটি ভেঙে ফেলার উদ্যোগ নেয়া হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার (১৩.০৬) সকাল সাতটা থেকে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ এবং ফায়ার সার্ভিস সদস্যদের উপস্থিতিতে দু’টি বোল্ডডোজার দিয়ে মার্কেট ভাঙার কাজ শুরু করা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অনেকটা সেকেলে মডেলের এই পৌর সুপার মার্কেট ভবনটি ব্যবহার অনুপযোগী হওয়ায় পরিত্যক্ত ঘোষণা করে ভেঙে ছয়তলা বিশিষ্ট আধুনিক শপিং মল করার উদ্যোগ নেয় পৌর কর্তৃপক্ষ। মার্কেটটিতে ছোট-বড় মিলিয়ে ১২০টি দোকানের ব্যবসায়ীরা তাদের দোকান অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার জন্য একাধিকবার সময় নিলেও দোকান না সরিয়ে পৌরসভার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে যান। তবে মামলা-মোকদ্দমায় ব্যবসায়ীরাই হন পরাজিত। সর্বশেষ ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য র.আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর হস্তক্ষেপে ব্যবসায়ীরা গেল ঈদুল ফিতর পর্যন্ত সময় চেয়ে নেন। গত বুধবার সেই সময় শেষ হয়ে যাওয়ায় গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে মার্কেট ভাঙার কাজ শুরু করেন পৌর কর্তৃপক্ষ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও সুপার মার্কেট ভাঙা কমিটির আহ্বায়ক ফেরদৌস মিয়া সাংবাদিকদের জানান, ‘হাইকোর্ট নয় মাস আগে মার্কেটটি খালি করার রায় দিয়েছিলেন। ব্যবসায়ীরা এম.পি’র সাথে কথা বলে ঈদের সাতদিন পর চলে যাবে বলে সময় নিয়েছিলেন। এই মর্মে আমাদের সাথে চুক্তিও হয়েছে। অার সেই চুক্তি মোতাবেকই আমরা মার্কেট ভাঙার কাজ শুরু করেছি।’

মার্কেট ভাঙ্গার কাজ শুরুর সময় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফিরোজা পারভীন,পৌরসভার সচিব আবুজর গিফারী, সদর মডেল থানার পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) আতিকুর রহমান, ১নং ফাঁড়ির পরিদর্শক মো. নুরুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন

Play
Play
previous arrow
next arrow
Slider

ফেসবুকে আমাদের সাথে থাকুন

তথ্য-প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারা স্বাধীন সাংবাদিকতার পথে একটি বড় বাধা হিসেবে চিহ্নিত হয়েছিল। এই ধারার কারণে বহু সাংবাদিককে হয়রানির শিকার হতে হয়েছে। তাঁদের বিরুদ্ধে অনেক মামলা হয়েছে। অনেককে কারাগারেও যেতে...

চন্দনাইশ প্রতিনিধি : সদ্য সমাপ্ত ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চন্দনাইশ উপজেলা থেকে টানা তৃতীয়বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোহাম্মদ আবদুল জব্বার চৌধুরী তৃতীয় মেয়াদের জন্য শপথ গ্রহণ শেষে চট্টগ্রাম থেকে চন্দনাইশে ফিরে...

previous arrow
next arrow
ArrowArrow
Slider

  ফারা মাহমুদা চৌধুরী (শিল্পী) মানবদরদী ও মানবহিতৈষি ব্যক্তিত্ব হিসেবে অতিথিদের হাত থেকে সম্মাননা পদক গ্রহণ করছেন।   ইমদাদুল হক তৈয়বঃ ‘মানুষ মানুষের জন্য’ এই নৈতিকতাবোধ থেকেই বুকে নীতি আদর্শ...

Archives

L0go

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি