শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:০৯ পূর্বাহ্ন

দেশের বিভিন্ন জায়গায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগাযোগ: ০১৭১১৫৭৬৬০৩
সংবাদ শিরোনামঃ
দুটি আর্ন্তজাতিক স্বীকৃতি পেলেন প্রথম সারির করোনা যুদ্ধা জহিরুল হক বিল্লাল আর্ন্তজাতিক স্বীকৃতি পেলেন এড. মো: আয়ুবুর রহমান ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাদকসহ আটজন গ্রেপ্তার কর্মকর্তার অবহেলায় গৃহহীনরা পায়নি প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর!  বর্ষাকালে ত্বকের সুস্থতার জন্য প্রয়োজনীয় পরামর্শ গুরুদাসপুরে পীরপাল মাজার শরীফের অর্থআত্মসাত ও গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ সাবেক খাদেমের বিরুদ্ধে নাসিরনগরে ” বৃক্ষ রোপন কর্মসূচি” পালিত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আসামীর ছুরিকাঘাতে দারোগা নিহত কেবল মাইকেই স্বাস্থ্যবিধির প্রচারণা, বাস্তবে উল্টো চিত্র! ভ্রুণ হত্যাকারী প্লাবনের গ্রেপ্তার দাবীতে নাসিরনগরে মানববন্ধন
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইসোলেশন সেন্টার ইউনিট প্রস্তুত

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইসোলেশন সেন্টার ইউনিট প্রস্তুত

[জেলায় এখনো হয়নি কেউই আক্রান্ত – অন্তরণের শর্তভঙ্গ করায় ২৫ প্রবাসীকে চার লক্ষাধিক টাকা জরিমানা]
ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:
করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রস্তুত করা হয়েছে আইসোলেশন সেন্টার ইউনিট। জেলায় এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত কাউকেই সনাক্ত করা হয়নি। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী সদ্য প্রবাসফেরতদের গৃহে অন্তরণের (হোম কোয়ারেন্টাইন) আওতায় আনতে কাজ করে যাচ্ছে জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ। প্রতিদিনই বাড়ছে অন্তরণ সংখ্যা।অপরদিকে অন্তরণের শর্তভঙ্গ করায় জেলায় ২৫ প্রবাসীকে করা হয়েছে চার লক্ষাধিক টাকা জরিমানা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, সাম্প্রতিক সময়ে করোনা আক্রান্ত বিভিন্ন দেশ থেকে ফিরেছেন কেবল ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলারই ৯ হাজার ২০৮ জন নাগরিক। তাদের মধ্যে অনেকেই খামখেয়ালীপনা করে জনস্বাস্থ্যকে ঝুঁকিতে ফেলতে প্রবাস থেকে ফেরার তথ্য গোপন রেখে খোলামেলা চলাফেরা করছিলো। সে সকল প্রবাসীদের প্রায়ই মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত জেলায় বিভিন্ন সময়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চালিয়ে গৃহে অন্তরণের আইন ভঙ্গ করায় প্রবাসফেরত ২৫ জনকে করা হয় চার লাখ ২২ হাজার টাকা জরিমানা। আজ শনিবার দুপুরে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে প্রস্তুত রাখা আইসোলেশন সেন্টার ইউনিট পরিদর্শনকালে এমন তথ্য জানান জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান।
জেলা প্রশাসক আরও জানান,এখন পর্যন্ত জেলায় দুই হাজার ৬৬০ জন প্রবাসীকে গৃহ অন্তরণের আওতায় আনা হয়েছে। এর মধ্যে ১৪ দিনের মেয়াদ পার হওয়ায় এক হাজার ৫৩৪ জনকে স্বাভাবিক জীবন যাপনে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। বর্তমানে এক হাজার ১২৬ জন প্রবাসীকে গৃহ অন্তরণে রাখা হয়েছে। এখনো পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত কাউকে সনাক্ত করা হয়নি। করোনা প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নে সেনাবাহিনী, জেলা ও পুলিশ প্রশানসহ সংশ্লিষ্টারা আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালন করছেন। পরে তিনি আইসোলশন সেন্টার ঘুরে দেখেন এবং এর সার্বিক কার্যক্রম বিষয়ে খোঁজখবর নেন। অত:পর তিনি হাসপাতালের সার্বিক কার্যক্রম নিয়েও সংশ্লিষ্ট  কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে হাসপাতালের পর্যাপ্ততা পর্যালোচনা করেন। পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মো. আনিসুর রহমান, সিভিল সার্জন ডা. মো. একরাম উল্লাহ, সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. শওকত হোসেন প্রমুখ।
Attachments area

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Design: About IT
x Close

ফেসবুকে আমাদের সাথে থাকুন

Shares
CrestaProject