সাংবাদিকতায় আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন: ০১৭১১৫৭৬৬০৩
  • সকাল ৬:১৯ | ১১ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১৪ই রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী

ব্রাহ্মণবাড়িয়া কারাগারের জেল সুপার ও ডেপুটি জেলার অবশেষে বদলী

এইচ.এম. সিরাজ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
অবশেষে বদলী হলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কারাগারের সুপার নূরন্নবী ভুইয়া।  একইসাথে ডেপুটি জেলার হুমায়ুন কবিরকেও বদলী করা হয়েছে।  গত সোমবার তাদের বদলীর আদেশ হয় বলে দায়িত্বশীল সুত্র জানিয়েছে।  জেল সুপার নূরন্নবী ভুইয়াকে মুন্সিগঞ্জ এবং ডেপুটি জেলার হুমায়ুন কবিরকে বরগুনা জেলা কারাগারে বদলী করা হয়েছে।

জানা যায়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের একটি তদন্ত কমিটি গত এপ্রিল মাসে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কারাগারের নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত করে। তদন্তে এই কারাগারে বন্দি বেচাকেনা, সাক্ষাৎ-সিট-খাবার-জামিন-চিকিৎসা-পিসি-পদায়ন বাণিজ্য, কারা অভ্যন্তরে নিষিদ্ধ মালামাল প্রবেশসহ নানা অপকর্মের এক ভয়াবহ চিত্র প্রকাশ পায়। ২৮ এপ্রিল ৫১ পৃষ্টার ওই তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের পর মে মাসে ২৬ কারারক্ষীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় কারা প্রশাসন। তার আগে বরখাস্ত করা হয় সর্ব প্রধান কারারক্ষী আবদুল ওয়াহেদকে। কিন্তু কারাগারের সকল অনিয়ম-দুর্নীতির সাথে জেল সুপার, জেলার ও ডেপুটি জেলার জড়িত উল্লেখ করে তাদেরকে কম গুরুত্বপূর্ণ জেলা কারাগারে বদলীপূর্বক বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হলেও এতোদিন তাদের বিরুদ্ধে কোনোোই ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।  হিসাব রক্ষক মো. নাজিম উদ্দিন, সহকারি সার্জন মো. হুমায়ুন কবির রেজা ও ডিপ্লোমা নার্স মো. নাজিরুল ইসলামের বিরুদ্ধেও একই ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছিলো স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের কারা-১ শাখার উপ-সচিব মো. মনিরুজ্জামান স্বাক্ষরিত পত্রে। ২৮ এপ্রিল অভিযুক্ত কর্মকর্তা ও কারারক্ষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের এই নির্দেশনা মন্ত্রনালয় থেকে কারা মহাপরিদর্শকের কাছে পাঠানো হয়।  এরপর শুধু ২৬ কারারক্ষীর বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। ওই তদন্ত প্রতিবেদনের অালোকে গণমাধ্যমে ফলাও করে সংবাদ প্রকাশের পর ফের টনক নড়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের।  এরই প্রেক্ষিতে গত সোমবার চট্টগ্রামের কারা উপ-মহাপরিদর্শক মো. ফজলুল হক ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কারাগার পরিদর্শন করেন। ঠিক সেদিনই জেল সুপার নূরুন্নবী ভুইয়া ও ডেপুটি জেলার হুমায়ুন কবিরের বদলীর আদেশ হয় বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেন।

Play
Play
previous arrow
next arrow
Slider

ফেসবুকে আমাদের সাথে থাকুন

তথ্য-প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারা স্বাধীন সাংবাদিকতার পথে একটি বড় বাধা হিসেবে চিহ্নিত হয়েছিল। এই ধারার কারণে বহু সাংবাদিককে হয়রানির শিকার হতে হয়েছে। তাঁদের বিরুদ্ধে অনেক মামলা হয়েছে। অনেককে কারাগারেও যেতে...

    ১৭ই মার্চ, ১৯২০ সালে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় শেখ লুৎফুর রহমান এবং সায়রা বেগমের ঘরে জন্ম নেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ছয় ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন তৃতীয়। গোপালগঞ্জ...

previous arrow
next arrow
ArrowArrow
Slider

  অত্যন্ত মিষ্টিভাষী ও উদারমনা সমাজসেবী মোঃ মাহবুব হাসান টুটুল। পিতা-(মৃত তোজাম্মেল হোসেন) টাংগাইল জেলার গোপালপুর থানার হেমনগর শিমলাপাড়া গ্রামে ১৯৮৩ সালে এই অনন্য ব্যক্তিত্বের অধিকারী জন্মগ্রহণ করেন। তিনি দুইবার...

L0go

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি