রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১০:১০ অপরাহ্ন

দেশের বিভিন্ন জায়গায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগাযোগ: ০১৭১১৫৭৬৬০৩
সংবাদ শিরোনামঃ
ইসলামের দৃষ্টিতে মূর্তি ও ভাস্কর্য  নাছিরপুর ঈদগাহের প্রতিরক্ষা দেয়ালের নির্মাণের কাজ পরিদর্শন করেন – রাফি উদ্দিন  নারী উদ্যোক্তাদের কল্যাণে আজীবন করে যাব …রুপা আহমেদ, প্রধান অ্যাডমিন, নারী উদ্যোক্তা বাংলাদেশ   ম্যারাডোনার মরদেহ তিনদিন থাকবে প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালেসে নাসিরনগরে মোবাইল কোটে ৬৮০০ টাকা অর্থদন্ড আদায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছাদ থেকে পড়ে দুই নির্মাণ শ্রমিক হতাহত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান মিয়ার ইন্তেকাল ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ শুরু দেশের মানুষ পুলিশের খারাপ আচরণ প্রত্যাশা করেনা : ডিআইজি চট্টগ্রাম রেঞ্জ চট্টগ্রামে স্বাস্থ্য সহকারীর বদলীর প্রতিবাদে নাসিরনগরে মানববন্ধন 
মোবাইলে লুডু খেলার টাকা না দেয়ায় যুবক খুন

মোবাইলে লুডু খেলার টাকা না দেয়ায় যুবক খুন

এইচ.এম. সিরাজ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
বাজি ধরে মোবাইলে লুডু খেলার টাকা নিয়ে মারামারি। এক পর্যায়ে ট্রাকে থাকা রশি দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে হত্যা করা হয় ট্রাকের হেলপার সবুর মিয়াকে। ঘটনার সাথে জড়িত সুজন মিয়া ও রমজান মিয়া অাদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মো. আনিসুর রহমান।

গতকাল সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় দিকে নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে পুলিশ সুপার এই তথ্য জানান। নিহত সবুর মিয়া (২০) জেলার আশুগঞ্জ উপজেলার চরচারতলা গ্রামের মৃত রহমত আলীর পুত্র। গত ৫ জুন সকালে চরচারতলা গ্রামের সারকারখানা সড়কে একটি ট্রাক থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের মা হনুফা আক্তার বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে আশুগঞ্জ থানায় মামলা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান জানান, মামলাটি প্রথমে আশুগঞ্জ থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) শীবাস চন্দ্র দাস তদন্ত করেন। পরবর্তীতে আসামি গ্রেপ্তার ও হত্যাকাণ্ডের মূল রহস্য উদঘাটনের জন্য মামলাটি জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) এসআই মো. সোহেল কামালের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ক্লুলেস এই হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটনের অনুসন্ধানে জানা যায়, চরচারতলা গ্রামের নিলু মিয়ার পুত্র মো. সুজন (২৮) এবং একই গ্রামের মো. মান্নানের পুত্র মো. রমজান (২০) হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। গত ৬ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার পঞ্চবটি এলাকা থেকে মো. সুজনকে এবং ৭ সেপ্টেম্বর নরসিংদীর বেলাব থানার নারায়ণপুর গ্রাম থেকে মো. রমজানকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তারা হত্যকাণ্ডে নিজেদের সম্পৃক্ত থাকার বিষয়ে অাদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেন।

অাদালতে প্রদত্ত জবানবন্দীতে তারা জানান, নিহত সবুর প্রায়শই সুজন এবং রমজানের সঙ্গে বাজি ধরে মোবাইল ফোনে লুডু গেম খেলতো। গত ৪ জুন দিবাগত রাত সাড়ে ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে রমজান ও সুজনের সঙ্গে ট্রাকে বাজিতে লুডু গেম খেলতে বসেন সবুর। রাত সাড়ে তিনটা থেকে চারটার দিকে লুডু খেলায় সবুরের কাছে হেরে যান সুজন ও রমজান। পরে সুজন ও রমজান খরচের জন্য সবুরের কাছে কিছু টাকা চান। কিন্তু সবুর টাকা না দিলে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি এমনকি মারামারি হয়। এরই একপর্যায়ে সবুরকে ট্রাকের ভেতরে থাকা রশি দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে হত্যা করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. আলমগীর হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর দপ্তর) মো. আবু সাঈদ, অতি. পুলিশ সুপার (নবীনগর সার্কেল) মেহেদী হাসান, বিশেষ শাখার সহাকারি পুলিশ সুপার মো. আলাউদ্দিন চৌধুরী ও ডিআইও-১ ইমতিয়াজ আহম্মেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Design: About IT
x Close

ফেসবুকে আমাদের সাথে থাকুন

Shares
CrestaProject